Image

জীবনের_গল্প

লোকটার নাম মোহাম্মদ শুক্কুর আলী। জন্ম বৃহস্পতিবার রাত ১২ টার পর। তাই তার পীর দাদা তার নাম রাখেন শুক্কুর আলী। সোনারগাঁও লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের মাঠে বাশে ঘেরা ছোট্ট এক তাকের চশমার দোকান দিয়ে তার জীবন চলে। জীবনের কাছে চাহিদা খুবই কম, তাই দিনে ২/১ টা যা-ই সেল হয় তা দিয়েই তার চলে যায়।

মজার ব্যাপার হচ্ছে তার গানের গলা অসম্ভব সুন্দর। দোকানের সামনে একটি চেয়ারে বসে মনের সুখে গান গায় সারাদিন। তাকে গাইতে দেখেই আমি তার পাশেই গিয়ে দাড়াই আর মুগ্ধ হয়ে গান শুনি। গান শেষে বলেই ফেললাম অনেক সুন্দর হইছে চাচা। উত্তরে আমাকে বললেন, আমার দেহ-মনে হাজারো গান জমা আছে বাপজান, গান গাইলে বেদনা দূর হয়। কানলে যেমন বেদনা দূর হয়, গান গাইলেও বেদনা দূর হয়। তার কথা শুনে আমার আগ্রহ আরও একটু বেরে গেলো। জিজ্ঞেস করলাম আপনি কোন ধরনের গান গাইতে পছন্দ করেন??? উনি বল্লেন, যখন যা মনে আসে তাই গাই, যে গান গাই তা কারোর লেখা গান না। মানুষের মনে কষ্ট জমলে সেই কষ্ট সুর হয়ে যায়। গান হয়ে বের হয়। আমার মনে যা আসে আমি তাই গাই, গান গাইলে বেদনা কমে। বলে আবারো একটা পল্লী গান ধরলেন। 
গানের কথাগুলো সুন্দর ছিল কিন্তু আমার কিছুতেই মনে পড়ছেনা এই মূহুর্তে।

শুক্কুর আলী চাচা চাচিকে বিয়ে করেন যখন চাচির বয়স মাত্র ১২ বছর । ফাউন্ডেশনের পাশেই একটা দালান নির্মান কাজের রাজমিস্ত্রী হিসেবে কাজ করছিলেন শুক্কুর আলী। এমন সময় ১২ বছর বয়সী মেয়েটা সেই রাস্তা দিয়েই হেটে যাচ্ছিলো। মেয়েটিকে দেখেই ভালো লেগে যায় আর ভালো লাগার কথাটা গিয়ে বলে মায়ের কাছে। মা নিজ দায়িত্বে সেই ১২ বছর বয়সী মেয়েটাকে তার ছেলের বউ করে ঘরে নিয়ে আসে। সুখ-দুঃখ মিলিয়ে এখনো বেচে আছে শুক্কুর আলীর ভালবাসা।

  •  জীবনের খোজে
  •  Bangladesh
  •  সোনারগাঁও, ঢাকা
  •  Bus
  •  00
  •  140
  •  350

0 comments

Leave a comment

Login To Comment