Image

“গ্যাংটকে গন্ডগোল” আর “দার্জিলিং জমজমাট”

ঘুরে এলাম হিমালয়ের কোলে রহস্যময় সিক্কিম ও কাঞ্চনজঙ্ঘা দর্শনের জন্য খ্যাত দার্জিলিং।

আমাদের দলটি ছিল ৮ জনের। ২৫ এপ্রিল রাতে চ্যাংড়াবান্ধা বর্ডার হয়ে শ্যামলী এন আর ট্রাভেলসে শিলিগুড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হই।

আমরা শিলিগুড়ি পৌঁছাই পরদিন দুপুর ২ঃ৩০ এ।শিলিগুড়ি এস এন টি তে সিক্কিমের পারমিশনের জন্য ফর্ম ফিল আপ শেষে আমরা গ্যাংটক যাওয়ার জন্য জিপ ভাড়া নেই (৮ জনের)৩০০০ রুপিতে।রাত ৮ টায় র‍্যাংপো চেক পোস্ট বন্ধ হয়ে যায়।আমরা তার কিছুক্ষণ আগে গিয়েই পৌঁছাই।ওখানে ফর্ম জমা দিয়ে পারমিট নিয়ে আমরা গ্যাংটক পৌঁছাই রাত ৯ঃ৩০ এ।

পরদিন ২৭ তারিখ পি এন জি রোডে সানমুন হাউজ নামে একটা হোটেল খুঁজে পাই ৪ জনের রুম ৮০০ রুপিতে।আমরা হোটেল থেকেই বিভিন্ন স্পটের প্যাকেজ নেই কিন্তু নিজেরা আলাদাভাবে ট্রাভেল এজেন্সি যোগাড় করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ।ওইদিন আমরা ৭ টা স্পট ঘোরার জন্য পার গাড়ি ১৬০০ রুপিতে(গাড়ি ৪ জনের তাই দুটো লেগেছিল) প্যাকেজ নেই।এর মধ্যে বানঝাকরি ফলস সবচেয়ে সুন্দর স্পট কিন্তু আমাদের গাড়ির ড্রাইভার সেটায় একদম শেষে নেয় যখন ওটা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।এক্ষেত্রে ড্রাইভার কে আগে ওই স্পটে নেয়ার জন্য বলে রাখতে হবে। আমরা হ্যান্ডলুম এক্সিবিশন,ফ্লাওয়ার এক্সিবিশন,তাশি ভিউ পয়েন্ট,গণেশটক মন্দির ও মনেস্ট্রি ঘুরে দেখি।গণেশটকে তাদের স্থানীয় পোশাক বক্কু পরতে পারেন ৪০-৫০ রুপিতে।

পরদিন.২৮ তারিখ আমরা সাঙ্গু লেক যাই ৪০০০ রুপির প্যাকেজে(৮জনের)।দুর্ভাগ্যবশত আমাদের গাড়ির ড্রাইভার এমনভাবে গাড়ি চালাচ্ছিল যেকোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারত।ট্রাভেল এজেন্সির সাথে সরাসরি যোগাযোগ না হওয়ায় এই সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। যাই হোক সাঙ্গু লেক অসম্ভব সুন্দর জায়গা।প্রায় পুরোটাই বরফে ঢাকা ছিল।বরফে পড়ার উপযুক্ত কাপড় সাথে না থাকলে পথে ভাড়া নিয়ে নিতে পারেন ৫০/১০০ রুপিতে।রাতে আমরা এম জি মার্গে শপিং করতে যাই।স্যুভেনির ছাড়া অন্য কিছু খুব একটা কম দামে পাওয়া যায় না।

পরদিন ২৯ তারিখ আমরা ১২০০০ রুপিতে (৮জনের) লাচুং-ইয়ামথাং ভ্যালী যাওয়ার ২দিন ১ রাত প্যাকেজ নেই। ১২০০০ রুপির মধ্যে গাড়ি ভাড়া,ওদিনের লাঞ্চ,ডিনার,হোটেল ভাড়া ও পরদিনের ব্রেকফাস্ট,লাঞ্চ অন্তর্ভুক্ত ছিল।আমরা পথে নাগা ফলস,ভিম নালা ফলস দেখে লাচুং এর হোটেলে পৌঁছাই।সিক্কিমে যত জায়গা ঘুরেছি লাচুং এর মত সুন্দর আর কোন জায়গা মনে হয়নি।নিজের চোখে না দেখলে মনে হয় না এটা উপলব্ধি করা সম্ভব।পরদিন ৩০ তারিখ ভোরে ঘুরে আসি রডডেন্ড্রন ফুলে ঘেরা ইয়ামথাং ভ্যালী।

ওদিন দুপুরের আগেই আমরা গ্যাংটকের উদ্দেশ্যে রওনা হই কারণ আমাদের পরিকল্পনা ছিল ওদিনই দার্জিলিং যাওয়ার।গ্যাংটক পৌঁছে হোটেল থেকে লাগেজ নিয়ে দেউড়ালি যাই দার্জিলিং যাওয়ার গাড়ি ভাড়া করতে।২৫০০ রুপিতে (৮ জনের)জিপ পেয়ে যাই।আমরা পৌঁছাই রাত ১০ঃ৩০ এ।রাত ৯ টার মধ্যেই সব হোটেল বন্ধ হয়ে যায় তাই অতিরিক্ত ভাড়ায় একটা হোটেলে উঠতে হয়।

পরদিন ১লা মে আমরা গাড়ি ভাড়া করি (৮ জনের)১৫০০ রুপিতে ৩টা স্পট।প্রথমে টাইগার হিল যাই।এখানে মূলত সবাই যায় সূর্যোদয় ও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে কিন্তু তখন কুয়াশার কারণে দেখা সম্ভব হইয় নি।এরপর ছোট্ট একটা মনেস্ট্রি দর্শন শেষে চলে যাই বাতাসিয়া লুপ।এই পার্কেও দার্জিলিং এর স্থানীয় পোশাক ভাড়া নিয়ে পরতে পারবেন,চড়তে পারবেন টয় ট্রেনে।

এবার ফিরে আসার পালা।আমরা শিলিগুড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেই দুপুর ৩ টায়।গাড়ি ভাড়া ছিল (৮ জনের)১৮০০ রুপি। পৌঁছে আমরা পরদিন ঢাকায় ফেরার টিকেট কাটি যেটা সম্ভব হলে কয়েকদিন আগেই কেটে রাখা ভাল।আমরা মাল্লাগুড়ি রোডের রয়াল গার্ডেন হোটেলে উঠি। ৪ জনের রুম ১৬০০ রুপি আর হোটেলের সার্ভিস বেশ ভাল ছিল।শপিং করতে হলেও শিলিগুড়ি ভাল অপশন।

পরদিন ২রা মে দুপুর.১ঃ৩০ এ আমরা ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হই।৩রা মে সকাল ৮ টায় ঢাকা পৌঁছাই।

*যাওয়া আসা মিলিয়ে ৭ দিনের ট্যুরে আমাদের খরচ হয়েছে প্রতিজন ১০০০০ রুপি(খাওয়ার খরচ সহ) ও ২৫০০ টাকা।

**গ্যাংটকের আবহাওয়া একদমই অনিশ্চিত।কখনো খুব গরম,কখনো হঠাত বৃষ্টি আবার কখনো অনেক ঠান্ডা।ছাতা আর শীতের কাপড় নিয়ে যাবেন।

***১০-১২ কপি পাসপোর্ট,ভিসার কপি ও ছবি নিয়ে যাবেন।

সিক্কিম ও দার্জিলিং এর অধিবাসীরা যেমন আন্তরিক তেমনই তাদের প্রবল আত্মসম্মান।সিক্কিমের রূপের ভান্ডার বিশাল,এই ছোট সফরে অনেক নয়নাভিরাম জায়গা ঘুরে আসা সম্ভব না হওয়ার আক্ষেপ থেকে যাবে!

  •  Trip to Sikkim and Darjeeling
  •  India
  •  Sikkim,Darjeeling
  •  Car (Hire)
  •  সানমুন হাউজ,পি এন জি রোড,গ্যাংটক
  •  গ্যাংটকে আমরা বেশিরভাগ সময় ময়ূর হোটেল(পি এন জি রোডের কাছেই) খেয়েছি।এখানে মোমো,চাউমিন,ফ্রাইড রাইস,আলু পরোটা কম টাকায় খেতে পারবেন।

0 comments

Leave a comment

Login To Comment