Image

মিশর ভ্রমনকাহিনী

মিশর (Egypt) ভ্রমনকাহিনীঃ
আমি আর আমার স্ত্রী ৮ দিনের জন্য গিয়েছিলাম মিশর আর দুবাই। এর মধ্যে আজ শুধু মিশরের অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি।

মিশর (রহস্য ভূমি)ঃ
মিশর আরব প্রজাতন্ত্র, উত্তর আফ্রিকার একটি প্রাচীন রাষ্ট্র। দেশটির বেশির ভাগ অংশ আফ্রিকাতে অবস্থিত। মিশরের অধিকাংশ এলাকা মরুময়। নীল নদ দেশটিকে দুইটি অসমান অংশে ভাগ করেছে। নীল নদের উপত্যকা ও ব-দ্বীপ অঞ্চলেই মিশরের বেশির ভাগ মানুষ বাস করেন। কায়রো দেশের বৃহত্তম শহর ও রাজধানী।

ভিসাঃ
মিশরের ভিসা সিস্টেম থাইল্যান্ড/মালেশিয়ার মতোই। এজেন্ট ভিসা ফিও কম। ৫০০০/৬০০০ টাকার মধ্যে প্রতিজন। সময় লাগে ৫-৭ দিন।
প্লেন ভাড়াঃ
ঢাকা থেকে মিশর যাওয়ার জন্য ২টা বিমান আছে বাংলাদেশ থেকে। এমিরেটস আর কুয়েত এয়ারলাইন্স (বাকি এয়ারলাইন্সগুলোর লে-আউট টাইম আর ভাড়া অনেক বেশি, তাই কমফোর্টেবল না)। এমিরেটসের ট্রানজিট দুবাই আর কুয়েত এয়ারলাইনসের কুয়েত। আমি এমিরেটসের টিকেট কাটি। আমার রুট ছিল ঢাকা টু কায়রো, কায়রো টু দুবাই, আর দুবাই টু ঢাকা। টিকেট মূল্য ৬০,০০০- ৭০,০০০ টাকা প্রতিজন। কুয়েত এয়ার এর টিকেট মূল্য এমিরেটস থেকে কম। সৌদি এয়ারও ট্রাই করা যায়।
কায়রো (Cairo):
কায়রো এয়ারপোর্টে পৌছার পরে আমরা টেক্সি ভাড়া করে চলে যায় আমাদের আগে থেকেই বুক করা হোটেলে। কায়রোতে থাকার জন্য দুইটা জায়গা জনপ্রিয়। ১. কায়রো সিটি ২. গিজা সিটি।
কায়রো সিটিতে থাকার জন্য ভালো জায়গা হলো নীল নদের আশেপাশে। আর যদি পিরামিডের আশেপাশে থাকার ইচ্ছে থাকে তবে আপনাকে থাকতে হবে গিজা শহরে।
আমরা বেছে নিয়েছিলাম লা মেরিডিয়ান পিরামিড হোটেল এবং এটি ছিল গিজাতে। আমাদের রুম ছিল পিরামিড ভিউ। রুম থেকে 'দ্যা গ্রেট পিরামিড' দেখতে পাওয়ার অনুভূতি ছিল এককথায় অসাধারণ! হোটেল ভাড়া দেশে থাকতেই booking.com থেকে কনফার্ম করে নেয়। হোটেল ভেদে ভাড়ার ভিন্নতা আছে কায়রোতে।
গিজা মরুভূমিময় পুরাতন বিল্ডিং এর একটি শহর। আধুনিকতার এখনোও তেমন আছড় পড়েনি এখানে। যদিও রাস্তা-ঘাট প্রশস্ত। এইক্ষেত্রে কায়রো শহর আধুনিক আর বিদেশসুলভ!
Must see in Cairo:
কায়রো তে প্রধান দেখার ছিল পিরামিড। পিরামিডের মধ্যে আছে, 'The Great Pyramid (সপ্ত আশ্চর্যের এক আশ্চর্য)' 'The Sphinx', 'Memphis' & 'Saqqara'। প্রতিটা জায়গায় ঢুকতে লাগবে টিকেট।)) প্রতিটি জায়গায় প্রতি টিকেটের মূল্য ১৬০-৫০০ ই.পা.।
এছাড়া আছে 'Egyptian Museum' (টিকেট মূল্য ১৬০ ই.পা.)। এই মিউজিয়ামে আছে রহস্যময় মিশরের রহস্যময় সব প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। অরিজিনাল মমি, রাজাদের আসবাবপত্র, তুতেনখামিনের ব্যবহৃত স্বর্নের চেয়ার, খাট, তলোয়ার/ছুড়িসহ বিভিন্ন সরঞ্জামি। আরো আছে রয়্যাল মমি! যেখানে আপনি দেখতে পাবেন রাজা-রানিদের মমি। এখানেই আছে 'Remesiss II' মানে ফেরাউনের মমি! এর জন্য আপনাকে আবার এক্সটা টিকেট কাটতে হবে (১৮০ ই.পা.)। এর ছবি তোলা নিষেধ। কড়া চেক করা হয়। তারপরেও ছবি তুলতে চাইলে, প্রতি ছবির জন্য দিতে হবে ৫০০ ই.পা.! বর্তমান ইজিপশিয়ান মিউজিয়াম নীল নদের পাড়ে অবস্তিত। যদিও নতুন মিউজিয়াম আগামি বছর গিজাতে (গ্রেট পিরামিডের কাছেই) স্তানান্তর করা হচ্ছে। যা হবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মিউজিয়াম। এর কাজ অলরেডি ৬০% শেষ।
কায়রো গিয়ে নীলনদ ভ্রমণ করবেন না তা কি করে হয়! তাই আমরাও রাতের নীল নদের 'Nile River Cruise' প্যাকেজটা অনলাইনে 'Viator.com' এর মাধ্যমে কনফার্ম করি। প্যাকেজ মূল্য ৫০০ ই.পা.। এর মধ্যে হোটেল পিক আপ এন্ড ড্রপ, ২ ঘন্টার ক্রুজ ভ্রমণ, ব্যুফে ডিনার, এরাবিয়ান টানোউরা শো, বেলী ড্যান্স অন্তর্ভুক্ত। এই প্যাকেজ এর মূল্য এক এক ক্রুজে এক এক রকম।
এছাড়াও কায়রোতে আরো দেখার আছে, Citadel, Old Cairo আর Khan el Khalili Bazar।

#Alexandria (ক্লিউপেট্রার শহর):
আলেকজান্ডারিয়া মিশরের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। এটি ভূমধ্যসাগর (Mediterranean Sea) এর পাড়ে অবস্তিত। এখানেই সর্বকালের অন্যতম সুন্দরী ক্লিউপেট্রার বাসস্থান ছিল! এখানে আছে রোমান শাসনের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। গ্রিক আর তার্কিদের শাসনামলের নিদর্শন। কায়রো থেকে একদিনের ট্যুর দেওয়া যায় এইখানে। আবার চাইলে রাতে থাকার ভালো হোটেলও আছে।
আমি অনলাইনে প্যাকেজ নেয় Viator.com থেকে। প্যাকেজ মূল্য USD 146 (দুইজন)। ভোরে একজন গাইডসহ গাড়ি (কার) এসে কায়রো থেকে আমাদের নিয়ে বের হয়ে রাতে হোটেলে পৌছায় দেয়। এরমধ্যে আমাদের আলেক্সান্ডারিয়ার প্রত্যেকটা টুরিস্ট স্পট ঘুরে দেখায়। আমাদের গাইড লোকাল ছিল এবং ইংলিশ স্পোকেন বেশ ভালোই ছিল। দুপুরে Mediterranean sea এর পাড়ে সীফুড লাঞ্চ করি। পুরাণো শহরের মাঝে নতুনভাবে গড়ে ঊঠা এক শহর এই আলেকজান্দ্রিয়া।
Must see: Fort Qaitbey, Corniche, Catacombs of Kom el-Shuqqafa, Pompey's Pillar, Cleopatra's Palace etc.

#Sherm-el-Sheikh
আমার পরবর্তী ডেস্টিনেশন ছিল শার্ম-এল-শেখ। শার্ম-এল-শেখ লোহিতসাগর (Red Sea) এর পাড়ে গড়ে উঠা একটি ছোট শহর। এই লোহিত সাগরের এক পাড়ে এশিয়া (সৌদি আরব) আর অন্য পাড়ে আফ্রিকা (মিশর)। কায়রো থেকে বাসে অথবা প্লেনে শার্ম-এল-শেখ যাওয়া যায়। প্লেনে লাগে ১ ঘন্টা আর বাসে লাগে ৭-৮ ঘন্টা। বাস কায়রো থেকে সিনাই পর্বত হয়ে শার্ম-এল-শেখ যায়। তবে প্রায় ৭/৮ জায়গায় বাস থামিয়ে চেকিং হয় এই রাস্তায়। যা বিরক্তিকর। আমরা কায়রো থেকে শার্ম-এল-শেখ বাসে যায় আর শার্ম-এল-শেখ থেকে কায়রো ব্যাক করি ইজিপ্ট এয়ারলাইনসে। ওয়ানওয়ে এয়ার ফেয়ার ১০০০-২০০০ ই.পা.।
বাস ভাড়া ২৫০-৪২৫ ই.পা.। আমরা সবচাইতে ভালো মানের বাসের টিকেট (৪২৫ ই.পাউন্ড) টাই নেয়। এসি বাস, ডিনার কম্পিলিমেন্টারি বাস টিকেটে, মুভি স্ক্রীন প্রতি সিটে, সিট লেগ রুম মোটামুটি। পুরাপুরি পা লম্বা করা যায় না। বাস সিনাই পর্বত আর লোহিতসাগরের পাড় দিয়ে শার্ম-এল-শেখ যায়।
শার্ম-এল-শেখ এ আমরা হোটেল বুকিং করি Sunrise Arabian Beach Resort -এ। এটি শার্ম-এল-শেখ এর অন্যতম প্রধান রিসোর্ট। বিশাল এলাকা নিয়ে করা সবুজাভ অসাধারণ সুন্দর এক ৫ তারকার রিসোর্ট। লোহিত সাগরের কোল ঘেষে এটি করা হয়েছে। অসাধারণ ভিউ আর দারুণসব আয়োজন আছে এই রিসোর্টে। এখানে দিনের বেলা এবং রাতের জন্য সারাদিনব্যাপি প্রোগ্রাম এরেঞ্জ করা থাকে। কিডস গেম, ফান গেম, কুইজ, ইন্টারন্যাশনাল ড্যান্স, লাইভ গান সহ অনেকগুলো প্রোগ্রাম থাকে। সপ্তাহের এক এক দিন এক এক রকমের আয়োজন। এইসব আপনি উপভোগ করতে পারবেন গেস্ট কম্পিলিমেন্টারি হিসেবে! আবার এদের নিজস্ব দারুণ একটা বীচ আছে। Snorking, Paragriding, cruies trip এগুলোরও ব্যবস্থা আছে। তবে এর জন্য আপনাকে প্যাকেজ কিনতে হবে।
রিসোর্টের প্রাইভেট বীচ এর পানি এতোই স্বচ্ছ যে, খালি চোখে পানির নিচে রংবেরঙের সামুদ্রিক মাছসহ সবকিছুই একদম পরিষ্কার দেখা যায়! এই রিসোর্টে সুইমিংপুল আছে টোটাল ৭টি! রেষ্টুরেন্ট আছে ৫ টি। এরাবিয়ান, ইন্ডিয়ান, ইটালিয়ান, ফ্রান্স আর সীফুড। ড্যান্স ক্লাব আছে, বার আছে। রিসোর্টের ভিতরে চলাচলের জন্য রিসোর্ট কর্তৃক গাড়ি আছে, যা প্রতি ১০ মিনিট অন্তর-অন্তর আসে- যায়। এক কথায় এই রিসোর্টে থাকলে আপনার বাইরেই যেতে ইচ্ছে করবে না! আমরা এখানে ছিলাম ৩ দিন। সী-ভিউ রুম নিয়েছিলাম বলে, সুন্দরটা ছিল আরো বেশি উপভোগ্য। লোহিতসাগরের পাড়ে মরুভূমির বুকে পরিকল্পিত এক অসাধারণ শহর হচ্ছে এই শার্ম-এল-শেখ। এছাড়াও আরো অনেক হোটেল-রিসোর্ট আছে শার্ম-এল-শেখে। ভিন্নতা ভেদে ভিন্ন রেট এগুলোর।
Must do & See:
Diving, Snorking, Paragriding, Camel & Bike Ride, Trip to Blue Hole, Mount Sinai climb & Sunrise view, Ras Mohammad National Park etc.

**টিপসঃ
-কায়রোতে প্রচুর পরিমাণে দালাল আছে। ড্রাইভার থেকে শুরু করে এরা টুরিস্ট স্পটে ভরপুর। ননস্টপ বিরক্ত করে ফেলবে গাইডের জন্য! পিরামিড এলাকার ভিতরেও এরা প্রচুর। নতুন ভ্রমণকারীদের একজন ফিক্সড গাইড থাকলে সুবিধা। তাহলে অন্যদের জ্বালা থেকে বাচা যায়!! তবে ঘোড়া গাড়ি করে পিরামিডের আশপাশ কাভার দেয়া অসাধারণ! এর জন্য খরচ হবে ৩০০-৪০০ ই.পা.।
-হোটেল, রেষ্টুরেন্টসহ অনেক জায়গায় অনেকে সার্ভিস টিপসের জন্য বিরক্ত করবে। তাই আগে চেক করে নিবেন বিলে সার্ভিস চার্জ অন্তর্ভুক্ত কিনা। কায়রোতে এইটা বেশি।
- কায়রোতে ট্যাক্সি ফেয়ার অনেক বেশি নেয়৷ তাই Uber বেস্ট অপশন। ফেয়ার অনেক কম।
-Money exchange এয়ারপোর্টে করাই উত্তম। শহরে মানি এক্সচেঞ্জ শপ কম আর এক্সচেঞ্জ রেটও কম। এক ইজিপশিয়ান পাউন্ড (ই.পা.)=৫.১২ বাংলাদেশি টাকা।
-মোবাইল সিম এয়ারপোর্ট থেকে নেওয়াই উত্তম। প্রাইস ১৬০-২০০ ই.পা.।
-সবকিছুতেই দরদাম করে নিতে হবে।
-খাবার-দাবার এরাবিয়ান। ওরা বেকারী আইটেম বেশি খায়। বিরিয়ানির ও ব্যবস্থা থাকে রেষ্টুরেন্ট গুলোই! আমরা অবশ্য এরাবিয়ান খাবারের উপরেই ছিলাম!! খাবারের দাম মোটামুটি রিজনেবল।
-ভাষা এরাবিয়ান। মোটামুটি অনেকেই ইংরেজি বুঝে। আবার অনেকেই বুঝে না!😣
-জুলাই-আগষ্ট সবচেয়ে বেশি গরম পড়ে মিশরে। তাই এই সময়টা এভইড করা উচিত।

এই ছিল সংক্্ষেপে মিশর অভিজ্ঞতা! কারো পিরামিড কিউরিওসিটি থেকে থাকলে দেরি না করে ঘুরে আসুন রহস্যময় মিশর!

0 comments

Leave a comment

Login To Comment