Image

করোনা থেকে মুক্ত থাকুন।

করোনা ভাইরাস এখন সারা বিশ্ব তথা বাংলাদেশের একটি বহুল আলোচিত ও ভয়াবহ সংক্রমক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। করোনা ভাইরাসের প্রাথমিক লক্ষণগুলো হলো- জ্বর, বিষণ্ণতা, শুষ্ক কাশি, শ্বাস কষ্ট ও গলা ব্যাথা। কোনো ঔষধ বা চিকিৎসা যেহেতু আবিষ্কার হয়নি তাই সচেতনতার বিকল্প নেই। চলুন জেনে নেয়া যাক, কোন কোন বিষয়ে সচেতনতা বেশি প্রয়োজন-

১. পরিষ্কারভাবে হাত ধোঁয়া

 দিনে একাধিকবার সাবান দিয়ে পরিষ্কারভাবে হাত ধুলে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমে যাবে অনেকাংশে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হাত ধোঁয়ার বিষয়টিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে।

বাইরে থেকে বাসায় ফিরে অন্তত হাতের কনুই ও পায়ের হাঁটু পর্যন্ত পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। সাবান ব্যবহার করা সবচেয়ে ভাল, তবে বার বার হাত ধোঁয়ার কারণে সাবানের ক্ষার স্কিনের ক্ষতিও করতে পারে। সেক্ষেত্রে ইথাইল অ্যালকোহল দিয়ে প্রস্তুতকৃত হ্যান্ড ওয়াশ বা পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট ব্যবহার করতে পারেন। হাতের উপরিভাগ, নখের কোণ, আঙুলের প্রতিটা ফাঁক ভাল করে ধুতে হবে। হাত ধোয়ার পর কোনো কিছু স্পর্শ না করে হাত শুকিয়ে নিন। ব্যবহৃত গামছা বা তোয়ালে পরিষ্কার রাখতে হবে।

২. ব্যবহৃত টিস্যু ডাস্টবিনে ফেলা

ব্যবহৃত ময়লা টিস্যু কখনোই যেখানে সেখানে ফেলে রাখবেন না। টিস্যু ব্যবহারের পর অবশ্যই তা ডাস্টবিনে ফেলবেন, মুখবন্ধ ডাস্টবিনে ফেললে সবচেয়ে ভালো হয়।

৩. অপরিষ্কার হাতে মুখমন্ডল স্পর্শ না করা

শরীরে করোনা ভাইরাস প্রবেশের অন্যতম তিনটি পথ হলো চোখ, নাক ও মুখ। তাই অপরিষ্কার হাতে চোখ, নাক ও মুখে হাত দেয়া থেকে বিরত থাকুন।

৪. মাটি বা জড় বস্তু স্পর্শের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকা

গবেষণায় জানা গেছে, করোনা ভাইরাস বাতাস, মাটি, পানি ইত্যাদি প্রায় সব জড় মাধ্যমে ভাইরাস অবস্থান করে। অর্থাৎ জীব ও জড় পরিবেশ উভয়ই ভাইরাসের আবাস। তাই যে কোনো জড় বস্তু যেমন- সিঁড়ির রেলিং, দরজার কলিং বেল, টাকা গুণা, মোবাইল ফোন এসব স্পর্শ করার সাথে সাথেই হাত ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে।

৫. হাঁচি দেয়ার সময় মুখে হাত না দেয়া

হাঁচি দেয়ার সময় মুখের সামনে হাত না রাখার অভ্যাস করুন। সেক্ষেত্রে হাঁচি আসলে মুখের সামনে হাতের বদলে কনুই রাখার চেষ্টা করুন।

৬. হ্যান্ডসেক থেকে বিরত থাকা

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে অপরিচিত ব্যাক্তির সাথে হাত মেলানো বা কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন। আর খুব পরিচিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে যদি হ্যান্ডসেক করতেই হয় তবে সাথে সাথে হাত ধুয়ে ফেলুন। কারণ, রোগী আপন হলেও রোগ তো আপন নয়।

উপরিউক্ত বিষয়গুলো মেনে চলুন। ভ্রমণের সময় মাস্ক পরুন এবং ব্যাগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখুন। রুচি এক্সপ্লোর লিমিটলেস চায় আপনাদের সুস্থতা ও নিরাপদ ভ্রমণ।  

0 comments

Leave a comment

Login To Comment